ডাক্তার শায়লা শামিম ও মনোয়ারা হাসপাতালের অভিজ্ঞতা

Tags

,

পৃথিবীতে মা হওয়া একই সাথে বিশাল একটা সুখের এবং কষ্টের কাজ। আমরা ছেলেরা এই বিষয়টা বাহির থেকে দেখি। আনন্দ পাই, কিন্তু মেয়েরা যে পরিমান কষ্ট সহ্য করে একটা বাচ্চা এই পৃথিবীতে আনে যা কখনই বুঝতে পারবো না। আমার বন্ধু তালিকার সবাই প্রায় তরুণ। অনেকেই নতুন বিয়ে করছে, সামনেই তাদের ঘর আলো করে বাচ্চা আসবে। আমাদের সবার এই কথাটা মনে রাখা উচিৎ যে আমাদের অর্ধাঙ্গিনীরা এই ৯টা মাস অনেক কষ্ট করে পার করবে। আমরা হয়ত শরীরের কষ্ট কমাইতে পারবো না কিন্তু তাদের মন আনন্দে ভরিয়ে দিতে পারবো। একই সাথে আমাদের ভবিষ্যৎকরনীয় বিষয়গুলো নিয়েও সচেতন থাকতে হবে। বাংলাদেশ যেহেতু, সবার প্রথম যথেষ্ট পরিমান টাকা জমিয়ে রাখতে হবে হাতে। নিয়মিত ডাক্তার এর চেকআপ করাতে হবে। ঠিক মত খাওয়াদাওয়া করাতে হবে। কোন রকম ভারী কাজ করতে দেয়া যাবে না। কোথায় ডেলিভারি করাবেন, সেখানে কিভাবে নিয়ে যাবেন সেগুলো আগে থেকেই ঠিক করিয়ে রাখতে হবে।

অপদার্থের মত সব কিছু ডাক্তার এর হাতে ছেড়ে দিবেন না। কি হচ্ছে না হচ্ছে এই বিষয়ে সজাগ থাকতে হবে। আমাদের প্রথম বাচ্চার জন্মের সময় আমরা অনেক কেয়ারফুল ছিলাম। কিন্তু তারপরও অনেক ভুল করে ফেলেছিলাম যার জন্য আমরা তাকে হারিয়েছি। এই কষ্ট সারাজীবনের। আপনারা ভুল করবেন না। বাংলাদেশ অনেক খারাপ একটা জায়গা। এখানে স্বাস্থ্য সেবা নয় ব্যবসা। এখানকার ক্লিনিক + ডাক্তারদের একটা বড় চেষ্টা থাকে প্রিম্যাচিউর বেবি জন্ম দেয়ার। এখানকার ডাক্তাররা কখনই আপনাকে নরমাল ডেলিভারির কথা বলবে না। নানা রকম ভয় দেখাবে যাতে সিজার করতে রাজি হন। কারন নরমাল ডেলিভারিতে তাদের ইনকাম কম। সিজার করলে ইনকাম বেশি হওয়ার একটা বিশাল সুযোগ থাকে।

আমার টাকার অভাব ছিল না, অভাব ছিল জ্ঞানের। বাসার কাছেই বলে নিয়ে গিয়েছিলাম সিদ্ধেশ্বরীর “মনোয়ারা হাসপাতাল” এ। ওখানকার ডিউটি ডাক্তার (যতদূর সম্ভব ইন্টার্ন) ঠিক ভাবে চেকআপ না করেই বলেছিল যে আমার স্ত্রীর ডেলিভারি পেইন উঠেছে। অথচ আমার স্ত্রীর সেই রকম ব্যাথাও ছিল না, পানিও ভেঙ্গে যায় নাই। সিজার করার জন্য ডাক্তার শায়লা শামিম (MBBS, FCPS (Obs & Gynae) Assitant Professor, Gynae & Obs. Bangabandhu Sheikh Mujib Medical University) যে কোন রাস্তা দিয়ে অপারেশন থিয়েটার এ গেলো তা আমি জানিই না। একবার আমার সাথে কথাও বলে নাই অপারেশন শুরুর আগে। অতীতে চেকাপের সময় উনাকে একবার জিজ্ঞাসা করেছিলাম ম্যাডাম নরমাল ডেলিভারি ভালো নাকি সি-সেকশন ভালো। উনার ভদ্রতার মুখোশ খুলে উনি আমাকে বিশাল একটা ঝাড়ি দিয়েছিলেন যে আর কিছু বলি নাই।

যাই হোক আমার অজ্ঞতা আর উনাদের লোভ একটা বাচ্চার জীবন অনিশ্চিত করেই এই পৃথিবীতে নিয়ে এসেছিল। ইবাদত (আমার প্রথম ছেলের নাম) এর জন্মের পর যখন আমাকে দেখানো হল তখন নার্সরা বললো বাচ্চা ভালো আছে, সব ঠিক আছে। আমিও আনন্দে খুশিতে উনাদের বখশিশ দিলাম। একটু পড়ে শিশু ডাক্তার তাহমিনা যিনি অপারেশন এর সময় উপস্থিত ছিলেন, উনি বের হচ্ছিলেন। আমি তাকে জিজ্ঞাসা করলাম যে বাচ্চা আর মাকে কখন বাসায় নিতে পারবো। উনি অনেক রুডলি আমাকে বললেন, বাসায় নিবেন ? আপনার বাচ্চা বাঁচে কিনা সেইটা আগে দেখেন। উনার কথায় আমি হতভম্ব। মনে হলো সেকেন্ড এর মধ্যে জান্নাত থেকে জাহান্নামে এসে পড়লাম। উনি নিজে গজর গজর করতে করতে বের হয়ে গেলেন। একজন ডাক্তারকে মনে হয় শিক্ষা দেয়া হয় যে কিভাবে রোগীর স্বজনদের সাথে কথা বলা উচিৎ। বাংলাদেশ জন্য উনারা এই শিক্ষাটা ভুলে গেছেন।

বাচ্চাকে নিয়ে গেলো এনআইসিইউ তে। যেখানে আমাদের যেতে দেয়া হয় না, কথা বলার মত, কিছু জিজ্ঞাসা করার মতও কেউ নাই। আমি একবার এনআইসিইউ এর সামনে দৌড়াই আরেকবার পোস্ট অপারেটিভ রুমের সামনে। একই সাথে কেবিন পাওয়ার জন্য এডমিনিস্ট্রেসন এ। বাচ্চার কি সমস্যা হইছে কিছুই জানি না। পুরো দিনটা এভাবে গেলো। রাতে শিশু ডাক্তার তাহমিনা আবার আসলেন। জানা গেলো আমার বাচ্চা সময়ের আগেই জন্ম নেয়ার কারনে তার ফুসফুস কাজ করছে না। তাকে আপাতত ইনকিউবেটর এ রাখা হয়েছে অক্সিজেন দিয়ে। তার অবস্থা ভালো না। কি বলবো মনের ভিতর যে কি যাচ্ছিল। কেবিন এ ফিরে জেরিনকে বললাম বাবু ভালো আছে। সব ঠিক আছে। এনআইসিইউ এর ঠিক সামনের কেবিনটা নিয়েছি যাতে বাচ্চার খোজখবর নেয়া যায়। রাতে চোখটা একটু বন্ধ করেছি ঠিক এই সময় নার্সরা ডাক দিল। এনআইসিইউ এর ভিতরে গিয়ে ডিউটি ডক্টর এর কাছে জানতে পারলাম, আমার বাচ্চার অবস্থা ভালো না, তাকে ইমিডিয়েট লাইফ সাপোর্ট এ দিতে হবে যে মেশিন তাদের এখানে নাই। জিজ্ঞাসা করলাম কোথায় আছে। বললো ধানমন্ডির পেডিহোপ হাসপাতাল এ। (পরবর্তিতে জানতে পেরেছিলাম যে পেডিহোপ এর সাথে তাদের একটা লিয়াজো আছে)। বললাম বাচ্চাটাকে একটু দেখতে পারি। ছোট্ট একটা বাচ্চা, বুকটা উঠানামা করছে, মনে হচ্ছে একেবারে ভেঙ্গে যাবে। ওদেরকে বললাম এম্বুলেন্স রেডি করতে। আম্মুকে ফোন দিয়ে বললাম হাসপাতাল এ আসতে। বন্ধু শাওন আনোয়ারকেও ফোন দিয়ে আসতে বললাম। জেরিনকে বললাম শক্ত হইতে তোমার বাবুকে আমি অন্য হাসপাতাল এ নিয়ে যাচ্ছি। ১০ মিনিট এর মধ্যেই বাচ্চাকে নিয়ে রওনা দিলাম। রাস্তা ফাকা ছিল অনেক দ্রুতই পৌঁছে গেলাম পেডিহোপ নামের জঘন্য হাসপাতাল এ। ওরা ওরাই সবকিছু করে বাচ্চাকে লাইফ সাপোর্ট মেশিন এ দিয়ে দিল। আমাকে অফিস এ নিয়ে জানানো হইলো তাদের এইখানে প্রতিদিনের খরচ কি রকম এই সেই। হাসপাতাল এর অবস্থা দেখেই আমার মন চুপসায় গেছে। হাসপাতাল কম বস্তি বলাই বেটার।

সকাল বিকাল ডাক্তার আসে। একটা কথাই শুধু শুনি আপনার বাচ্চার অবস্থা ভালো না। কাচের জানালা দিয়ে দেখি আমার বাবুর বুক উঠানামা করছে। যতক্ষণ পারি তাকিয়ে থাকি। একটু গবেষণা করে জানা গেলো এই সমস্যার নাম RDS (Respiratory Distress Syndrome) এবং প্রথম চিকিৎসাই হল Surfactant therapy. দৌড়ে যাই ডিউটি ডাক্তার এর কাছে। তাকে বলি আমার বাচ্চাকে কি এইটা দেয়া হয়েছে কিনা। তার কাছ থেকে নাম্বার নিয়ে কথা বলি মেইন ডক্টর এর সাথে। সে বলে জন্মের ছয় থেকে বারো ঘণ্টার মধ্যেই দিতে হয়। এইটা দেয়ার দায়িত্ব মনোয়ারা হসপিটাল এর শিশু ডাক্তার তাহমিনার ছিল। ডাঃ তাহমিনাকে ফোন দিলে সে বলে মনোয়ারা হাসপাতালে নাকি সেই সুযোগ সুবিধা ছিল না। মনোয়ারা হাসপাতালে ব্যবস্থা না থাকলে জন্মের প্রথম ১২ ঘণ্টা বাচ্চাটাকে শুধু ইনকিউবেটর এ রেখে ওরা টেস্ট করতেছিল। তারপর ডাক্তারকে বলি বাচ্চার অবস্থা যখন এতোই খারাপ এখনও আমি সারফ্যাক্টান্ট থেরাপি দিতে চাই। যদি কিছু উন্নতি হয়। ডিউটি ডক্টর একটা ছোট কাগজের টুকরায় ওষুধের নাম লিখে দেয়। বলে ওষুধের দাম ২০-২৫ হাজার টাকা। এইজন্য তারা নাকি সবাইকে বলে না। তার কথা আর কাগজের হাতের লেখা দেখে আমি হতভম্ব। আর যাই হোক কোন প্রফেশনাল ডাক্তার এর হাতের লেখা সেইটা ছিল না।

ধানমন্ডির রাস্তায় রাস্তায় দৌড়াই ওষুধের খজে আমি আর মাসুদ। অনেক খোজাখুজির পর পেয়ে যাই। বুকের মধ্যে একটু আশা বাড়ে, হয়ত আমার বাচ্চাটা সুস্থ হয়ে যাবে। ওষুধ নিয়ে এসে ডাক্তারকে বলি যে ওষুধ দেয়ার সময় আমি থাকতে চাই। এদের স্বভাব চরিত্র সম্পর্কে ততক্ষণে ধারনা হয়ে গেছে। দামি ওষুধ যদি না দিয়েই বলে যে দিয়েছি। ওষুধ দেয়া হলো, আমার বুকে আর কোন সাহস অবশিষ্ট নাই। বন্ধু আনোয়ারকে আগে বারবার বলছিলাম অন্য কোন ভালো হাসপাতাল এ নেয়ার ব্যবস্থা করা যায় কিনা সেটা দেখতে। কিন্তু ওষুধ দেয়ার সময় বুঝতে পারলাম যে লাইফ সাপোর্ট থেকে খুললে বাচ্চার শ্বাসপ্রসাস পুরো থেমে যায়। এই বাচ্চাকে নিয়ে আর কোথাও যাওয়ার সুযোগ নাই। এক মিনিট নিঃশ্বাস নিতে না পারলে আমাদের কত কষ্ট হয়। তিনটা দিন আমার বাচ্চাটা এতো কষ্ট সহ্য করলো, আমি বাবা হয়ে ওর জন্য কিছু করতে পারলাম না। অবশেষে ডাক্তার জানালো তাদের আর কিছু করার নাই। আমি চাইলে শেষ বারের মত আমার ছেলেকে দেখতে পারি।

এপ্রোন পড়ে আইসিইউতে গেলাম। আমার বাবা চোখ বন্ধ করে ছিল। ওর কপালে একটু হাত রাখলাম। ও চোখ মেলে তাকালো। ওর চোখ দিয়ে দুই ফোটা জল গড়িয়ে পড়লো। এতোটুকু বাচ্চা ওই কি বুঝতে পেরেছিল যে বেঁচে থাকতে ওই কোনদিন ওর মায়ের বুকের আদর পাবে না। আমি আর কিছু দেখিনাই চোখে। সব কিছু ঘোলা হয়ে গেলো। বের হয়ে বললাম জেরিনকে যে করে হোক রিলিজ করিয়ে নিয়ে আসতে। জন্মের পর থেকে ও ওর বাচ্চাটাকে দেখতে পারে নাই। বন্ধুরা জেরিনকে এ্যাম্বুলেন্স এ করে নিয়ে আসলো জানিনা তখন আমার বাবা এই পৃথিবীতে আর ছিল কিনা। জেরিন আর আম্মু কাচের ফাঁক দিয়ে বাবুকে দেখে বাসায় চলে গেলো। তার কিছুক্ষণ পর সাদা কাপড়ে মুড়িয়ে আমার সোনামনিটাকে আমার বুকে দিল। এতো সুন্দর হাসি মুখ নিয়ে ছিল। মনে হচ্ছিল পৃথিবীর এই সব কষ্ট থেকে ওই মুক্তি পেয়ে গেছে। বাপের কোলে তিনদিনের বাচ্চার দেহ যে কতটা ভারী হতে পারে তা আমি টের পাইলাম। বাসায় কেউ জানতো না। আমি আমার বাবাকে নিয়ে বাসায় আসলাম। জেরিন তো সাথে সাথেই পড়ে গেলো। বাচ্চার জন্য কাদবো না জেরিনকে সামলাবো বুঝতে পারছিলাম না। জেরিন এর বুকে ওর এতো কষ্টের ধন নিথর দেহটা দিলাম। আমি পারি নাই ওরা বাচ্চাটাকে বাচাইতে। আমি অনেক কিছুই জানতাম না। জানতাম না মনোয়ারা হাসপাতাল এতো খারাপ। জানতাম না পেডিহোপ হাসপাতাল এতো খারাপ। পরে কাউসার ভাইয়ের কাছে শুনি প্রায় একই ঘটনা। তিনিও মনোয়ারা – পেডিহোপ হাসপাতালের এই চক্রান্তে পড়তে ধরেছিলেন। কিন্তু তাদের জানা থাকায় তারা পেডিহোপ এ না নিয়ে নিজ দায়িত্তে স্কয়ার হাসপাতাল এ নিয়ে গিয়েছিলেন।

আমাদের এই দেশে মানুষের জীবনের দাম নাই। ডাক্তাররা রোগীর কথা চিন্তা করে না। তারা চিন্তা করে বাচ্চা প্রিম্যাচিউর হলেই ব্যবসা। আইসিইউতে ঢুকাইতেই পারলেই লাখ লাখ টাকা ইনকাম। তাতে বাচ্চা বাচুক আর মরুক। তাদের মনের ভিতর একটা ফুটফুটে বাচ্চার জন্য এক ফোটা মায়া হয় না। অনেক হাসপাতাল এ তো শুনেছি ইঞ্জেকশন দিয়ে ডেলিভারী পেইন তুলে দেয় বাচ্চা প্রিমাচিউর করার জন্য।

অনেক হয় দেখে শেখে না হইলে নিজের জীবন দিয়ে শেখে। আমি আমার জীবন দিয়ে শিখেছি। পুরো লেখাটা লিখতে আমার চোখ দিয়ে অনবরত পানি পড়েছে। আমার এই লেখা পড়ে যদি তোমরা কিছু শিখতে পারো তাহলেই আমার লেখা সার্থক হবে। নিজের বাচ্চার জন্মের সময় অনেক সতর্ক থাকা প্রয়োজন, সবকিছুর জন্য প্রস্তুত থাকা প্রয়োজন। সবাই পারলে এই পেডিহোপ হাসপাতাল, মনোয়ারা হাসপাতাল, ডাক্তার শায়লা শামিম, তার সাথের শিশু বিশেষজ্ঞ ডাঃ তাহমিনা এবং এদের মত সব ডাক্তারদের কাছে থেকে দূরে থাকবেন। এইসব বিষয়ে ইন্টারনেট এ অনেক লেখা আছে। এই লেখাগুলো পড়বেন। ডাক্তাররা বেশিরভাগ সময়ই ২ সপ্তাহ আগে অপারেশন করতে চায়। এই বিষয়েও সতর্ক থাকা দরকার। অনেক সময় বলে আপনার বাচ্চার ওজন বেশি তাই তারাতারি অপারেশন করতে হবে। জন্মের পর বলবে ওজন কম এইজন্য লাইফসাপোর্ট এ রাখতে হবে। এতো কিছু লাগে না। নরমাল ডেলিভারি সবচাইতে ভালো। বাচ্চা হওয়ার পরপরই মায়ের বুকে দেয়া উচিৎ এবং শালদুধ খাওয়াতে হবে। অনেক সময় মায়ের বুকে দুধ আসতে দেরি হয়। এইসময় দুধ না আসলেও বাচ্চাকে বুকের দুধ খাওয়ানোর চেষ্টা করতে হবে, বাচ্চা চুষলেই দুধ আসবে। এছাড়াও এই বিষয়ে সাহায্য প্রদান করে এমন একটি সংস্থা হচ্ছে বাংলাদশ ব্রেস্টফিডিং ফাউন্ডেশন যা মহাখালিতে অবস্থিত। এদের প্রশিক্ষিত নার্সরা খুব সামান্য ফি এর বিনিময়ে আপনার বাসায় গিয়ে দুধ খাওয়ানোর বিষয়ে সাহায্য করবে। অনেক সময় দুধ এর শিরায় ব্লক থাকে, এইজন্য বাচ্চা দুধ পায় নাই। এইসব বিষয়ে BBF সবচাইতে ভালো সাহায্য করতে পারে। ভুলেও বাচ্চাকে ফর্মুলা বা পাউডার দুধ খাওয়াবেন না। এইটা বাচ্চার শরীরের জন্য অনেক ক্ষতিকর। মায়ের বুকের দুধই শ্রেষ্ঠ খাবার। সবাই ভালো থাকবেন।

Original Post: http://on.fb.me/1B5kWLN

ই-কমার্স – বাংলাদেশ পরিস্থিতি এবং ভবিষ্যৎ!

Tags

তথ্য প্রযুক্তি এখন মানব জীবনের একটি আবিছেদ্য অংশ। বিশ্বায়নের কল্যাণে উন্নত দেশের খোঁজখবর ঘরে বসেই পাওয়া সম্ভব। উন্নত বিশ্বের সাথে তাল মেলাতে গিয়ে বাংলাদেশের ব্যবসা-বাণিজ্যেও প্রযুক্তির ছোঁয়া লেগেছে। তবে এই ক্ষেত্রে বাইরের বিশ্ব যেখানে অনেক অগ্রসর, বাংলাদেশ সেখানে অনেকটা পিছিয়ে আছে। ইন্টারনেট প্রযুক্তির ব্যবহারের কারনে এখন যোগাযোগ ব্যবস্থা হয়ে উঠেছে অনেক সহজ এবং দ্রুততর। ফলশ্রুতিতে ব্যবসা-বানিজ্যের প্রচার ও প্রসার ঘটছে দ্রুত। বর্তমানে বাংলাদেশে যে ডিজিটাল যুগের সূচনা হয়েছে তারই পথ ধরে ই-কমার্স বা ইন্টারনেট ভিত্তিক ব্যবসা বাণিজ্য আরো জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।

আমাদের দেশে ই-কমার্সের সূচনা নব্বইয়ের দশকের শেষের দিকে যখন ইন্টারনেট জনসাধারণের হাতে পৌঁছে। এখন প্রশ্ন হচ্ছে ই-কমার্স বলতে আমরা কি বুঝি? সহজ ভাষায় এর অর্থ হচ্ছে ইলেকট্রনিক কমার্স। ইন্টারনেটের মাধ্যমে যখন ব্যবসা করা হয় তখন সেটা ই-কমার্স নামে পরিচিত হয়। এটা বিভিন্ন ভাবে গড়ে উঠতে পারে, যেমন: দু’টি বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের মধ্যে (বি-টু-বি), বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান এবং সরকারী প্রতিষ্ঠানের মধ্যে (বি-টু-জি), বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান এবং ক্রেতার মাঝে (বি-টু-সি), এমনকি ক্রেতা এবং ক্রেতার মাঝেও (সি-টু-সি) এই বাণিজ্যিক সম্পর্ক হতে পারে।

বাংলাদেশে বি-টু-বি এর প্রচলন সবচেয়ে বেশি। এর কারন হচ্ছে আমাদের গার্মেন্টস সেক্টর। তৈরি পোশাক শিল্পের ক্রেতাগণ সাধারণত ইন্টারনেটের মাধ্যমেই বিক্রেতার সাথে যোগাযোগ স্থাপন করে এবং কোম্পানির ওয়েবসাইট থেকে স্যাম্পল সংগ্রহ করে থাকে। উন্নতবিশ্বে বি-টু-সি এবং সি-টু-সি খুবই জনপ্রিয় এবং সহজলভ্য হলেও বাংলাদেশ এই ক্ষেত্রে অনেক পিছিয়ে আছে। বর্তমানে কিছু ওয়েবসাইট ইন্টারনেটের মাধ্যমে কেনাবেচার সুবিধাগুলো প্রদান করছে তবে তার পরিসর স্বল্প। এই অনগ্রসরতার কারণ হিসেবে মনে করা হয় আমাদের দুর্বল প্রযুক্তি ব্যবস্থা এবং ইন্টারনেট ব্যবহারে অনগ্রসরতা। এছাড়াও বাংলাদেশের ধীর গতির ইন্টারনেট সার্ভিস এবং আন্তর্জাতিক মানের পেমেন্ট গেটওয়ে না থাকার কারনেও উপরক্ত দুটি সেক্টর প্রসার লাভ করছেনা। কিন্তু এত প্রতিবন্ধকতা সত্তেও আশার আলো হিসেবে ইন্টারনেটে কেনাকাটা বা প্রয়োজনীয় জিনিসের তথ্য খুঁজে বের করা এখন অনেক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

যেসব ক্ষেত্রে আমরা এখন ইন্টারনেটের শরণাপন্ন হচ্ছি তার মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে বিল পরিশোধ, হোটেল বুকিং, বিমানের টিকেট বুকিং, অনলাইন ব্যাংকিং, নতুন-পুরাতন দ্রব্যাদি ক্রয়-বিক্রয়, রিয়াল এস্টেট ব্যবসা, গাড়ি বা অন্যান্য যানবাহন ক্রয়-বিক্রয় ইত্যাদি। ঘরে বসেই মানুষ এখন বিভিন্ন সেবার যেমন: গ্যাস, পানি, বিদ্যুৎ, টেলিফোন ইত্যাদির বিল পরিশোধ করতে পারে। এগুলো সম্ভব হয়েছে মোবাইল ব্যংকিং এর কারনে। এছাড়া সম্প্রতি মোবাইল ব্যংকিং এর মাধ্যমে টাকা পাঠানো জনপ্রিয়তা লাভ করেছে সব শ্রেণী পেশার মানুষের কাছে। বিভিন্ন শপিংমলে এখন ইলেকট্রনিকালি বিল পরিশোধের ব্যবস্থা আছে। সুপারমার্কেটগুলোতে কার্ড পেমেন্টের ব্যবস্থা থাকায় ক্রেতারা অনেকটা নিশ্চিন্ত মনে বাজার করতে পারেন। উন্নত বিশ্বে মানুষ ঘরে বসেই তাদের নিত্য দিনের বাজার করছে অনায়াসে। ইবে, আমাজন ছাড়াও অনেক প্লাটফর্ম আছে যারা এই সুবিধা গুল প্রদান করে থাকে। আমাদের দেশে অনলাইনে কেনাবেচার জন্য বর্তমানে অনেক ওয়েবসাইট রয়েছে যেমন: বিপনি, ইবিপনন, আইফেরি, রকমারী, প্রিয়শপ, লামুদি, ক্লিকবিডি, এখনি, উপহারবিডি, কারমুদি, গিফটবিডি, সামগ্রি, বিডিহাট, ইত্যাদি। এই ওয়েবসাইটগুলো থেকে মানুষ তাদের প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি বা উপহার সামগ্রী ঘরে বসেই ক্রয় করতে পারে।

উপরে যেসব ওয়েবসাইট গুলো উল্লেখ করা হয়েছে এগুলোর বাইরেও অনেক ওয়েবসাইট আছে যেগুলো একই সুবিধা প্রদান করে থাকে। তবে তুলনামূলক ভাবে এই সেক্টরটি এখনো বিভিন্ন প্রতিকূল পরিস্থিতির শিকার হচ্ছে। আমাদের দেশের ব্যংকিং ব্যবস্থা এখনো আশানুরূপ ভাবে নিরাপদ না। অনেক ব্যংক এখনো অনলাইন ব্যবস্থা চালু করতে পারেনি। সাধারণ মানুষের মাঝে কার্ড ব্যবহারের প্রচলন ও কম। এখানে একটা বিষয় উল্লেখ না করলেই নয় যে, অনলাইনে কেনাকাটা যেমন সুবিধাজনক, এর কিছু খারাপ দিক ও আছে। অনেক ক্ষেত্রে পণ্যের গুনাগুণ ঠিক থাকেনা, আবার গ্রাহকের প্রতারিত হওয়ার আশংকাও থাকে। তবে আশার কথা এই যে, নানাবিধ প্রতিকূলতা সত্ত্বেও অনলাইন কেনাকাটা বাংলাদেশে জনপ্রিয়তা লাভ করছে। মোবাইল ইন্টারনেট এবং ওয়াই ফাই ইন্টারনেটের প্রসারের কারনে সর্বসাধারণের হাতের নাগালে ইন্টারনেট পৌঁছেছে। এখন প্রয়োজন মানুষের মাঝে সচেতনতা তৈরি এবং বিক্রিত দ্রব্যাদির মান নিশ্চিতকরণ।  এটা যদি খুব দ্রুত করা সম্ভব হয় তাহলে ই-কমার্সের দুই সেক্টর খুব দ্রুত বিকাশ লাভ করবে বলে আশা করা যায়।

মূল লেখা: বুলবুল আনোয়ার

Install Google Apps and Play Store on Nokia X, X+ and XL

Tags

, , , , ,

অল্প দামের মধ্যে সুন্দর অ্যানড্রোয়েড ফোন নোকিয়া X, X+ এবং XL. দেরীতে আসলেও চমৎকার পারফর্মেন্স এই ফোনগুলির। তবে সমস্যা হলো এই ফোনে গুগলের প্লে স্টোর সরাসরি থাকেনা, আর নোকিয়ার স্টোরে তেমন কোনো অ্যাপ না থাকায় পাওয়ার ইউজারদের একটু হতাশার মধ্যেই থাকতে হবে। তবে গুগল্ অ্যাপ দেয়াটাও কঠিন কিছুনা, কিছুক্ষণ সময় আর কয়েকটা ডাউনলোড করলেই হয়ে যায়। পরবর্পতি ধাপগুলি ফলো করলেই আপনার ফোনে গুগল অ্যাপ চলে আসবে, তবে পরবর্তী ধাপে যাবার আগে নিশ্চিত হোন আপনার ফোনে সম্পুর্ণ চার্জ আছে।

গুগল্ অ্যপ ইনস্টল করতে আমাদের প্রথমে ফোনটি আপডেট করতে হবে ১.১.১ ফার্মওয়্যারে (নতুন ফোনগুলি অবশ্য এই ভার্শন দিয়েই আসছে এখন)। ফার্মওয়্যারের ভার্সন দেখার জন্য যেতে হবে Settings -> About Phone, যদি ফার্মওয়্যার এই ভার্সনের না হয়ে থাকে তাহলে ফোনটিকে ইন্টারনেটের সাথে কানেক্ট করলেই আপডেট নোটিফিকেশন আসবে বা Settings -> About Phone -> System Updates থেকে আপডেট চেক্ করা যাবে এবং আপডেট হলে পরবর্তি ধাপগুলিতে যেতে হবে।

এবার নোকিয়া স্টোর থেকে ES File Explorer File Manager সফটওয়্যারটি ইনস্টল করে নিতে হবে। এটি পরে কাজে লাগবে।

এবার কম্পিউটার থেকে এই লিঙ্ক থেকে Root_NokiaX_v11.1.1_KashaMalaga_25_03_2014 ফাইলটি ডাউলোড করে এক্সট্রাক্ট করতে হবে।

উপরের ছবির মতো, ভেতরে দু’টি ফোল্ডার পাওয়া যাবে। প্রথমে NokiaX USB Drivers -> Nokia -> usb_driver ফোল্ডারে গিয়ে nokia_winusb.inf ফাইলে রাইটক্লিক্ করে install অপশনটি নির্বাচন করতে হবে।

এতে নোকিয়ার ড্রাইভারগুলি ইনস্টল হয়ে যাবে। এরপর কম্পিউটারটিকে ইন্টারনেট থেকে বিচ্ছিন্ন করে নোকিয়া মোবাইলটিকে USB দিয়ে কম্পিউটারের সাথে সংযুক্ত করতে হবে। এই সময় আপনা থেকে ড্রাইভার ইনস্টল হবে। এই পর্যায়ে Settings -> Developer Options-এ গিয়ে Developer Options-এর পাশের সুইচটি স্লাইড করে এই উইন্ডোর অপশনগুলি অ্যাকটিভ করতে হবে।

করার পরে একটি কনফার্মেশন ডায়লগ আসবে সেটা OK করতে হবে।

পরে USB Debugging চেক্‌বক্সটিতে ট্যাপ করে টিক্ দিতে হবে এবং প্রশ্নের ডায়লগবক্সটিতে OK করতে হবে।

সাথে সাথে কম্পিউটার আরেকটি ড্রাইভার চিনবে এবং ইনস্টল করবে। (ইন্টারনেটে সংযুক্ত থাকলে এই ড্রাইভার খুঁজতে এবং ইনস্টল করতে অনেক সময় লেগে যায়, যেটা আমার উপরের ধাপে আগে থেকেই করে রেখেছি, তারপরেও উইন্ডোজ ইন্টারনেটে অকারণে কি-যেনো খুঁজতে থাকে) ড্রাইভার ইনস্টলের প্রক্রিয়া শেষ হলে কম্পিউটারটিকে আবার ইন্টারনেটে সংযুক্ত করে আনজিপ করা KingRoot_NokiaX_Mod ফোল্ডারে গিয়ে SuperRoot.exe ফাইলটি চালু করতে হবে।

এবার সফটওয়্যারটি Nokia X, X+ বা XL-কে চিনবে এবং প্রয়োজনীয় ফাইল ইন্টারনেট থেকে ডাউনলোড করবে। ডাউনলোড হলে উইন্ডোর মাঝখানে Root নামের একটি বাটন অকার্যকর অবস্থায় থাকবে। সেই উন্ডোর উপরে Agree অপশন নির্বাচন করলে Root বোতামটি কার্যকর হবে এবং ক্লিক্ করলে ফোনটি রুট হয়ে যাবে। কম্পিউটার যদি ইন্টারনেটে সংযুক্ত না থাকে, তাহলে এই সফটওয়্যার কাজ করবেনা।

এবার ফোন কম্পিউটার থেকে বিচ্ছিন্ন করে রিস্টার্ট দিলে Superuser নামের একটি সফটওয়্যার ইনস্টল হয়েছে দেখা যাবে।

এবার এই লিঙ্ক থেকে NokiaX_Gapps_KashaMalaga_28.02.2014.zip ফাইলটি ডাউনলোড করে এক্সট্রাক্ট করে মোবাইলের মেমরিতে কপি করে রাখতে হবে। মনে রাখতে হবে ফাইলগুলি কোথায় কপি করে রাখা হলো। এবার ES File Explorer File Manager সফটওয়্যারটি চালু করে নীচের ছবিতে হাইলাইট করা বাটনে ট্যাপ করতে হবে।

ট্যাপ করলে অপশন ট্রে বের হবে, সেখানে Root Explorer-এর পাশের বোতামটিকে স্লাইড করে Root Explorer অপশনটি চালু করতে হবে।

প্রায় সাথে সাথে এপ্রুভাল চেয়ে একটি পপ-আপ উইন্ডো আসবে, সেখানে Grant-এ ট্যাপ করে ES File Explorer File Manager-কে Root ক্ষমতা দিতে হবে।

এরপরে আবার অপশন ট্রে’র Root Explorer লেখাটির উপরে ট্যাপ করলে নীচের মতো উইন্ডো আসবে, সেখানে Mount R/W অপশনে ট্যাপ করতে হবে।

এবার যে উইন্ডোটি আসবে সেখানে নীচের উইন্ডোর মতো বুলেটগুলি সেট করতে হবে।

এবার ES File Explorer File Manager-এর অ্যাড্রেস বারে (নীচের ছবিতে চিহ্নিত) ট্যাপ করে NokiaX_Gapps_KashaMalaga_28.02.2014.zip থেকে পাওয়া ফাইলগুলি যেই ফোল্ডারে রাখা হয়েছিলো সেখান থেকে কপি করতে হবে।

এবং একই ভাবে /Device -> System -> app ফোল্ডারে গিয়ে ফাইলগুলি পেস্ট করে দিতে হবে। কি কি ফাইল থাকবে তা এই তালিকা থেকে মিলিয়ে নিতে পারেন:

ChromeBookmarksSyncAdapter.apk, com.google.android.gms-1.apk, GenieWidget.apk, GoogleBackupTransport.apk, GoogleCalendarSyncAdapter.apk, GoogleContactsSyncAdapter.apk, GoogleEars.apk, GoogleFeedback.apk, GoogleLoginService.apk, GooglePartnerSetup.apk, GoogleServicesFramework.apk, GoogleTTS.apk, Hangouts.apk (এটি ঐচ্ছিক, আপনি হ্যাঙ আউট ব্যবহার না করলে এটা কপি করার দরকার নাই), MediaUploader.apk, Microbes.apk, NetworkLocation.apk, OneTimeInitializer.apk, Phonesky.apk, SetupWizard.apk, Street.apk, Talkback.apk, Thinkfree.apk এবং VoiceSearchStub.apk

পেস্ট করা হয়ে গেলে প্রতিটি ফাইলের উপর ট্যপ করে ধরলে উইন্ডোর নীচে আরও অপশনের টুলবার দেখাবে সেখানে More বাটনে ক্লিক্ করে Properties নির্বাচন করতে হবে।

এখান Properties উইন্ডো আসবে, সেখানে Permission-এ Change বাটনে ট্যাপ করতে হবে।

এবার যেই উইন্ডোটি আসবে সেটাতে নীচের ছবির মতো চেক্‌বক্সগুলি টিক্ দিয়ে বা তুলে নিয়ে সেট করে OK করতে হবে।

যে কয়টি ফাইল পেস্ট করা হলো, প্রতিটির ক্ষেত্রে এই কাজ করতে হবে, একটু সময় নিয়ে করতে হবে, যাতে ভুল না হয়ে যায়।

এর পরে ফোন রিস্টার্ট করলেই দেখা যাবে গুগলের অ্যাপগুলি হোম স্ক্রিনে চলে এসেছে। এবার প্লে স্টোরে লগ-ইন করে নামিয়ে নিন আপনার পছন্দের অ্যাপ। আর নোকিয়ার হোম স্ক্রিন ভালো না লাগলে শত শত লঞ্চার আছে গুগল প্লেতে! 🙂

মাইক্রোসফটের কাছে পাওয়া শেষ চেক্!

Tags

গত ২০১২ সালের জুন মাসে মাইক্রোসফট ছেড়েছি, সবার ক্ষেত্রে যা হয় আমার ক্ষেত্রেও তাই হলো, ছাড়ার সময় কিছু দেনা পাওনা থেকেই গেলো। আমি অনেক ভাগ্যবান যে গত ২৫ তারিখে শেষ পাওনা চেক্‌টি হাতে পেয়েছি। শেয়ার করার মতো একটি বিষয় বলে শেয়ার না করে পারলাম না।

এখান থেকে একটি বিষয় শিক্ষা নেয়া যায়, সহসা কিছু হচ্ছেনা বলে আমরা অনেকসময় নিরাশ হয়ে যাই, অনেক সময় নিজের উপরে নিয়ন্ত্রন হারিয়ে ফেলি, একটু ধৈর্য্য ধরলেই কিন্তু আমরা যা চাই, তা পেয়ে যাই। 🙂

Root Walton Walpad 8b, Walpad 8w, Walpad 8 and Walpad 7

Tags

, , , , , ,

ওয়ালটনের ওয়ালপ্যাডগুলি সাধ্যের মধ্যে দাম এবং পারফর্মেন্সও সুন্দর। কিন্তু অ্যানড্রোয়েডের আমার যে জিনিসটা ভালোলাগেনা, সেটা হলো বাংলা ফন্ট। তাই রুট করে ফন্টটা ফেলে মনের মতো ফন্ট ইনস্টল করাই হচ্ছে আমার প্রথম কাজ। রুট করার পদ্ধতিটা এত সহজ এবং মজার যে না শেয়ার করে পারলাম না।

প্রথমে Settings -> About Tablet-এ গিয়ে ডানের কলামে Build Number অংশটিতে চট্‌পট্ কয়েকবার (সম্ভবত দশবার) ট্যাপ করতে হবে।

Walton Walpad

করতে করতেই বামের About Phone-এর উপরে Developer Options নামে নতুন একটি অংশ আসবে। বাম কলাম থেকে সেই Developer Options নির্বাচন করে ডান কলামে USB Debugging অপশনটিতে ট্যাপ করে টিক্ দিতে হবে।

Walton Walpad

উপরের ঘরের মতো একটি সতর্কীকরণ বার্তা আসবে, সেটাতে OK করে দিতে হবে। ভয়ের কিছু নাই, এটা ক্ষতির কিছু না, আর প্রক্রিয়াটি শেষ হলে একইভাবে টিক্‌টি আবার তুলে দেয়া যাবে।

Walton Walpad

এবার বামের কলামে Security নির্বাচন করে ডানের কলামে Unknown Sources অপশনটিতে ট্যাপ করে টিক্ দিতে হবে। আমি যে প্রক্রিয়াটি বলছি, সেটা অনুকরণ করলে যে ঝামেলা হবেনা, সেটা নিশ্চিত হবার জন্য পরের Verify Apps অপশনটিতেও ট্যাপ করে টিক্ দেয়া যেতে পারে। এতে করে সম্পুর্ণ প্রক্রিয়াটি গুগল পরীক্ষা করবে।

এবার ট্যাবলেট থেকে এই লিঙ্কে গিয়ে Framaroot-এর সর্বশেষ সংষ্করণটি ডাউনলোড করে নিতে হবে (আমার ক্ষেত্রে আমি ব্যবহার করেছি ১.৯.১ সংষ্করণটি), এবং সেই .apk ফাইলটা চালু করতে হবে।

স্ক্রিনে আসা নির্দেশনাগুলি অনুসরণ করলে Framaroot ইনস্টল হয়ে যাবে এবং সেটা চালু করলে এরকম একটি উইন্ডো দেখতে পাবো:
সেখানে Barahir অপশনটি নির্বাচন করলে রুট করার প্রক্রিয়া চালু হবে এবং কোনো ঝামেলা না থাকলে সফলভাবে সম্পন্ন হবে এবং ট্যাবলেটটি রিস্টার্ট করতে বলবে। রিস্টার্ট করার পরে আমরা অ্যাপ ট্রে-তে SuperSU নামের একটি অ্যাপ দেখতে পাবো। সেটা চালু করে সেটিংস ট্যাবে গেলেই বুঝতে পারবো রুট হয়েছে কি-না।

এই বিষয়ে কোনোকিছু জানার থাকলে এই লিঙ্কে গিয়ে আলোচনা করা যেতে পারে।